হাত বদলেই কেজিতে সবজির দাম বাড়ছে ১০ টাকা – newsline71bd
শিরোনাম
নাটোর পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ডের কমিশনার প্রার্থী স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা শুভ”র গণসংযোগ!! গত ২৪ ঘণ্টা দেশে করোনা শনাক্ত-১৩২০,মৃত্যু-১৮ অসচ্ছলদের নামের তালিকা সচ্ছলদের নাম প্রকাশ!রামগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধাদের বাড়ি বরাদ্দে অনিয়মের অভিযোগ!! রামগঞ্জে নানান আয়োজনে কমিউনিটি পুলিশিং’ডে উদযাপন!! বিত্তবানরা নিজ এলাকার দুস্থ-অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান : প্রধানমন্ত্রী!! বরগুনার রিফাত হত্যা: বরিশাল কারাগারে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ৩ আসামি!! ৩৫তম স্প্যান আবহাওয়া অনুকূলে থাকলেওপদ্মা সেতুতে বসছে আজ!! ঢাকায় মালয়েশিয়ার নতুন হাইকমিশনার যোগদান!! নিহত ২- লক্ষ্মীপুরে সিএনজি ও মোটরসাইকেল সংঘর্ষ!! রামগঞ্জে কওমি মাদ্রাসা ঐক্য পরিষদ ও ধর্মপ্রান মুসুল্লীদের বিক্ষোভ!!
রবিবার, ০১ নভেম্বর ২০২০, ০৭:৪২ পূর্বাহ্ন

হাত বদলেই কেজিতে সবজির দাম বাড়ছে ১০ টাকা

রিপোটারের নাম / ৩৪ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৭ জুলাই, ২০২০

সরকারঘোষিত সাধারণ ছুটি শেষে সরবরাহব্যবস্থা স্বাভাবিক হলেও বাজারে হু হু করে বাড়ছে সব ধরনের সবজির দাম। প্রায় সব সবজির কেজিই এখন ৫০ টাকার ওপরে। আবার কোনো কোনোটি ১০০ টাকার ওপরে। ব্যবসায়ী পর্যায়ে হাতবদল হলেই কেজিপ্রতি বেড়ে যাচ্ছে অন্তত ১০ টাকা।

মুগদা বাজারের সবজি বিক্রেতা আনোয়ার হোসেন কারওয়ান বাজার থেকে পাইকারিতে ২৮ টাকা কেজি ঢেঁড়স কিনে খুচরায় বিক্রি করেন ৪০ টাকা। তাঁর দাবি, মাল কেনার পর মিন্তি খরচ কেজিতে এক টাকা, ভ্যানভাড়া খরচ হয় আরো এক টাকা। সেই সঙ্গে কিছু মাল নষ্ট হয়, কিছু ওজনে ঘাটতি হয়। এর সঙ্গে লাভ যোগ করে ৩৫ টাকার নিচে বিক্রি করা যায় না। প্রতিটি সবজির দামই এভাবে হাতবদলের পর কেজিতে অন্তত ১০ টাকা বেড়ে যাচ্ছে।

গতকাল মঙ্গলবার শ্যামবাজার থেকে পাইকারিতে কিনে ভ্যানে পুঁইশাক নিয়ে মালিবাগ বাজারে যাচ্ছিলেন বিক্রেতা আলামিন। তাঁর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, সব খরচ মিলে ১৫ টাকা পড়েছে পুঁইশাকের কেজি। মালিবাগ বাজারে দিয়ে দেখা যায়, পুঁইশাকের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৫ থেকে ৩০ টাকা। ব্যবসায়ীরা বলছেন, প্রতিবছর বর্ষায় সবজির দাম বাড়ে। তবে এবার একটু বেশিই বেড়েছে। প্রতিটি সবজির দাম এবার গেল বছরের একই সময়ের তুলনায় কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা বেশি। এর জন্য খুচরা ব্যবসায়ীরা দুষছেন পাইকারি ব্যবসায়ীদের আর পাইকারি ব্যবসায়ীরা অজুহাত দিচ্ছেন উৎপাদন ও সরবরাহ ঘাটতির।

বাংলাদেশ কাঁচামাল আড়তদার মালিক সমিতির সভাপতি ইমরান মাস্টার বলেন, ‘ঈশ্বরদীসহ অন্যান্য মোকামে এবার সবজির সরবরাহ কম। চাল, কুমড়া, করলা ইত্যাদি সবজির অর্ডার দিয়েও চাহিদামতো পাওয়া যাচ্ছে না। এর কারণ হতে পারে, আষাঢ় মাস শুরু হওয়ায় নদীপারের সবজিক্ষেত ডুবে যাচ্ছে। বৃষ্টিতেও অনেক ক্ষেত ডুবে সবজি নষ্ট হয়েছে। আবার লকডাউনের সময় কৃষকরা সবজি বিক্রি করতে না পেরে যে লোকসানে পড়েছেন, তাতে অনেকে আর চাষ করেননি। এসব কারণে এবার সবজির উৎপাদন কম হয়েছে।

গোপীবাগ, মালিবাগ, মানিকনগরসহ রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে, পাইকারি বাজারে খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, কেজিপ্রতি সব সবজির দাম গত বছরের এই সময়ের তুলনায় ১০ থেকে ১৫ টাকা বেশি। আবার কিছু সবজির মৌসুম না হওয়ায় সেগুলো আমদানি করতে হয়। ওই সবজির দাম বর্তমানে কেজিপ্রতি ১০০ টাকার ওপরে। আমদানি করা সবজির মধ্যে রয়েছে টমেটো, গাজর ইত্যাদি। খুচরা বাজারে ভালো মানের টমেটো ও গাজর বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা কেজি। অথচ চলতি মাসের শুরুতে টমেটোর কেজি ছিল ৪০ থেকে ৫০ টাকা। আলুর কেজি বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে ৩০ টাকার বেশি বিক্রি হচ্ছিল। তবে গতকাল কেজিতে ২ টাকা কমে ২৮ টাকায় বিক্রি হয়েছে। তার পরও গত বছরের একই সময়ের তুলনায় কেজিতে ৬ থেকে ৮ টাকা বেশি। ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) হিসাবে আলুর দাম গত বছরের তুলনায় সাড়ে ৯ শতাংশ বেড়েছে।

খুচরা বিক্রেতারা বলছেন, আড়তে সবজির দাম বেশি, তাই তাঁদেরও বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। মালিবাগ বাজারের এক সবজি বিক্রেতা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘গত বছরও এই সময় ঢেঁড়স বিক্রি করেছি ৩০ টাকা কেজি। কেনা পড়ত ২০ থেকে ২২ টাকা। এ ছাড়া পটোল ৩০ থেকে ৩৫ টাকা কেজি আর করলা বিক্রি করেছিলাম ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি। প্রতিবছর বর্ষায় সবজির দাম বাড়ে। এ বছর একটু বেশি বেড়েছে।’

গতকাল বাজারে ভালো মানের পটোল বিক্রি হয়েছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি আর করলা বিক্রি হয়েছে ৮০ টাকা কেজি। বেগুন ৬০ টাকা, কাঁকরোল ৫০ টাকা, কইডা ৫০ টাকা, কচুমুখি ৬০ টাকা, পেঁপে ৫০ থেকে ৫৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। কাঁচা মরিচের কেজি ৮০ টাকা। ভালো মানের শসা ৪০ থেকে ৪৫ টাকা কেজি।

ভোক্তারা বলছেন, সাধারণ ছুটির সময় সব কিছুর দাম বেশি হলেও সবজির দামে স্বস্তি ছিল। বর্তমানে সব পণ্যের দাম চড়া। ফলে ভোক্তার ওপর চাপ ক্রমেই বাড়ছে।

গোপীবাগ বাজারে সবজি কিনতে আসা সেবিকা দেবনাথের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, ‘সবজি প্রতিদিনই লাগে। তাই কেজিতে ২-৪ টাকা বাড়লেও অনেক। আমরা বেশি দামে সবজি কিনি, আবার খবর পাই কৃষক সবজির দাম পাচ্ছে না। তাহলে দাম কেন বাড়ছে? এটি সরকারের মনিটর করা উচিত।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

বিশ্বে করোনা ভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
৪০৭,৬৮৪
সুস্থ
৩২৪,১৪৫
মৃত্যু
৫,৯২৩
সূত্র: আইইডিসিআর

বিশ্বে

আক্রান্ত
৪৫,৫৭৬,৯৯০
সুস্থ
৩০,৫৬৯,০০৬
মৃত্যু
১,১৮৮,৭৮৭